হু হু করে পানি বাড়ছে গ্রাম অঞ্চলে । bangla news

মুন্সীগঞ্জের লোহাজংয়ে প্রমত্ত পদ্মার জল বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।  কয়েকশ ঘরবাড়ি প্লাবিত হয়েছে।  রাস্তা নিমজ্জিত হয়েছে।  গাইবান্ধার করতোয় জল বাড়তে থাকে। banglasnews.com

Image Source - Google | Image by - pratidin


  তিস্তায় লালমনীহাটের দক্ষিণ বালাপাড়া নামে একটি গ্রাম অদৃশ্য হয়ে গেছে।  এদিকে, সমস্ত নদী অবসন্ন হওয়ায় কুড়িগ্রামে বন্যার পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে।  তবে বনবাসীদের দুর্ভোগ কমছে না।  প্রতিনিধিদের দ্বারা প্রেরিত তথ্য-

  মুন্সিগঞ্জ: লোহাজংয়ের পদ্মার জল বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।  24 ঘন্টা জলের স্তর 12 সেমি বৃদ্ধি পেয়েছে।  পানি উন্নয়ন বোর্ডের মতে পদ্মার জলের স্তর মাওয়াতে ১৩ সেমি বেড়েছে এবং বিপদসীমা থেকে ১২ সেন্টিমিটার উপরে প্রবাহিত হচ্ছে।  পদ্মা অববাহিকার নিম্ন প্রান্তগুলি প্লাবিত হয়েছে।

  চর অঞ্চলের অনেক অঞ্চল জলে ডুবে গেছে।  দ্রুত বন্যার কারণে আমন ধান সহ অনেক ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।  পদ্মার জলে স্রোত বিশাল আকার ধারণ করেছে।  তাই শিমুলিয়া-কাঁথালবাড়ি রুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে।

  গাইবান্ধা: ব্রহ্মপুত্র ঘাঘাট তিস্তার জলের স্তর প্রতিদিন কমছে তবে দু'দিন ধরে করতোয়ায় জলের স্তর ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে।  গাইবান্ধা জল উন্নয়ন বোর্ডের মতে, গত 24 ঘন্টা ব্রহ্মপুত্রের জলের স্তর 24 সেন্টিমিটার কমেছে এবং বিপদসীমা থেকে 11 সেন্টিমিটার উপরে প্রবাহিত হচ্ছে।  ঘাঘাটের জলের স্তরটি বিপদসীমার চেয়ে ১ 16 সেন্টিমিটার নীচে ১৪ সেমি কমেছে এবং তিস্তার পানির স্তর বিপদসীমা থেকে ২২ সেন্টিমিটার কমেছে ৪৮ সেমি।  অন্যদিকে, করতোয়ার পানির স্তর বেড়েছে 72 সেমি।  লালমনিরহাট: আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের দক্ষিণ বালাপাড়া গ্রাম মানচিত্রে থাকলেও আর দেখা যায় না।  তিস্তা নদীর ভাঙ্গনের ফলে গ্রামটি নদীর তীরে ডুবে গেছে

  গ্রামের শেষ বাড়িটিও গতকাল বিকেলে নদীতে ডুবে গেছে।  এক সপ্তাহের ভাঙ্গনে শতাধিক পরিবারের বাড়িঘর ও আবাদযোগ্য জমি ভেসে যাওয়ার কারণে অসহায় পরিবারগুলি চরম সঙ্কটে রয়েছে।  নদীর ভাঙন এখন শিম দিচ্ছে পার্শ্ববর্তী গ্রাম চিমারি of  কুনিগাছ, রাজপুর, মোগলহাট, হাতীবান্ধার গাদ্দিমারী, সানিয়াজন, সিন্দুনা, সিংগিমারি, দৌয়াবাড়ী এবং কালিগঞ্জের ভোটমারী ইউনিয়নে চলমান বন্যায় এই অঞ্চলের শতাধিক বাড়িঘর ভেসে গেছে।  কেউ কেউ বাড়ি সরিয়ে দিচ্ছেন।

  কুড়িগ্রাম: তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি বিপদসীমার অনেক নিচে প্রবাহিত হচ্ছে।  অন্যান্য ছোট নদীর জলের স্তরও হ্রাস পেয়েছে।  ধরলা নদীর জলের স্তর ব্রিজ পয়েন্টে হ্রাস পাচ্ছিল এবং বিপদসীমা থেকে মাত্র 6 সেমি উপরে প্রবাহিত ছিল।  সোমবার সন্ধ্যা। টায় পানি উন্নয়ন বোর্ড এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।  জলটি দ্রুত বয়ে যাচ্ছিল এবং ব্রহ্মপুত্র নুনখাওয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ৩৪ সেন্টিমিটার নীচে এবং চিলমারী পয়েন্টের 20 সেন্টিমিটার নিচে প্রবাহিত হচ্ছিল।  এদিকে, জলাবদ্ধতা শুরু হওয়ায় জেলার বন্যার পরিস্থিতি কিছুটা উন্নত হয়েছে।

Post a Comment

0 Comments